1. admin@banglatimesbd.com : admin :
মাতাল 'বিথীকা' ফুলও গন্ধহীন - বাংলা টাইমস বিডি
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
নারী নেত্রী আয়শা খানম আর নেই
প্রধান খবর
নতুন বছরে ইতিবাচক রাজনীতিতে ফিরে আসুন : বিএনপিকে ওবায়দুল কাদের হ‌বিগ‌ঞ্জে বাস দুর্ঘটনায় নিহত আট হাওর বিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠনের দাবিতে মানববন্ধন সোশাল মিডিয়ায় ছবি দিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের শিকার জয়া আহসান যে খাবারগুলো দ্বিতীয়বার গরম করে ডেকে আনছেন নিজের বিপদ বাংলাদেশের সঙ্গে টি-টুয়েন্টি খেলবে না ওয়েস্ট ইন্ডিজ খোঁজ মিলেছে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার হোতাদের: অতিরিক্ত ডিআইজি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙে ফেললো দুর্বৃত্তরা বিচ্ছেদের পর পাচ্ছেন প্রচুর বিয়ের প্রস্তাব, বিব্রত শবনম ফারিয়া করোনায় অভিনয়ে ফিরলেন নুসরাত ফারিয়া জানেন সকালে মধু খাওয়ার কত গুণ? শেখ মণির জন্মদিনে এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ করলেন বাবু জাতিসংঘে গাঁজার জয় শবনম ফারিয়ার বিবাহ বিচ্ছেদ বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় আলী যাকের মাতাল ‘বিথীকা’ ফুলও গন্ধহীন মিজানুর রহমান আজহারীর পোস্ট রিমুভ করে দিল ফেসবুক কর্তৃপক্ষ চলে গেলেন ম্যারাডোনা ডিসেম্বরে এইচএসসির ফলাফল ঘোষণা হবে দুই মাস পেছাবে আগামী বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশিদের ‘যৌন অতৃপ্ত’ বললেন প্রিয়তী নতুন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শপথ নেবেন সন্ধ্যায় প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা উপরের শ্রেণিতে একই ক্লাসরোল পাবে আওয়ামী লীগ অফিস ভাঙচুরের মামলায় ৫ আসামি কারাগারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা বিভাগীয় শহরে নেওয়ার সিদ্ধান্ত মাদক টেস্টে পজেটিভ রেজাল্ট এসেছে ৬৮ পুলিশ সদস্যের পদ্মা সেতুতে বসলো ৩৮ তম স্প্যান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়: প্রাণে প্রাণ মেলাবোই রুহুল কবির রিজভীর হার্টে পরানো হলো রিং একজনের মিথ্যায় লকডাউনে ১৭ লাখ মানুষ আওয়ামী লীগ কখনো প্রতিশোধের রাজনীতি করে না: ওবায়দুল কাদের মাধ্যমিক শিক্ষায় বিলুপ্ত হচ্ছে বিভাগ ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে হাবিবুল বাশার ঢাকা দক্ষিণ আ’লীগের দপ্তর সম্পাদক হলেন রিয়াজ ঢাকা দক্ষিণ আ’লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক হলেন আবদুল মতিন ভূঁইয়া
add

মাতাল ‘বিথীকা’ ফুলও গন্ধহীন

  • শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০
  • ২২৭ বার পড়া হয়েছে

উৎপল দাস

শিউলি ফুলের একটা মালা এবারের দূর্গাপূজায় দিয়েছিলাম রমনা কালী মন্দিরের সামনে থেকে। ঢাকেশ্বরী মন্দির থেকে ফিরে যখন গাড়ি রেখে রিকশা করে এগিয়ে দিচ্ছিলাম তখন তিনি শিউলি ফুলের মালাটি রাস্তায় ফেলে দিতে চাইলেন। সেদিন একটা আলতু করে চুমুও দিয়েছি। আমি সেই মালা পকেটে করে এনে এখনো যতনেই রেখে দিয়েছি। বিথীকা ফুল নামের কোনো ফুল আছে কিনা তাও আমার জানা নেই। মানুষের মনটা তো ফুলের মতোই,আমি নিজেকে দিয়ে এটা বিশ্বাস করি। তাই মন থেকে দেয়া এই ফুলের নাম বীথিকা ফুল।

আমি মাত্র দেখলাম আপনার ইমেইলটা। যেহেতু আপনাকে ফোনেই ব্লক করেছিলাম,একটা বাদে। এই নম্বরটা আপনার ৪ নম্বর।  যে মানুষের ৪ টা ফোন নম্বর একটিভ থাকে,তাকে নিয়েও আমি কোনো সন্দেহ করতে আসি নাই। যাইহোক দুঃখিত।  আমি যেহেতু আপনাকে আসতেই বলি নাই,তাই আপনাকে তিন ঘন্টা একটা বেসরকারি টেলিভিশনের পাশে থ্রি স্টার হোটেলের সামনে তিন ঘন্টা ওয়েট করা উচিত হয়নি। অবশ্য এখন নাকি প্রায়ই আপনি অফিস শেষ করে রাত ১১ টার আগে বাসায়ই যান না। যদিও আপনার অফিস শেষ সন্ধ্যা ৬ টায়। এরপর হয়তো আমাকে না জানিয়েই আপনার শত শত বন্ধু ভাই বোনদের সাথে সময় কাটাতে হয়।

আমি যে হোটেলে আড্ডা মারি,সেই  হোটেলে আমার রুম নম্বর কত সেটা আপনি ভালো করেই জানেন বা রেস্টুরেন্টে এসে কাউকে বলতেই পারতেন। যাই হোক আমাদের দেখা না হওয়াটাই ভালো হয়েছে। কারণ আমি যতদূর আপনার সম্পর্কে জেনেছি,তাতে আর কোনোরূপ যোগাযোগ রাখতে আগ্রহ নেই। সেটা ওই রাতেই হারিয়েছে যে রাতে অন্যের বাসায় গিয়ে মাতাল হয়ে জ্বরের মিথ্যা কথা বলে যা তা বলেছেন, সে রাতেই। কখনো বাইরে থাকেন না,সে রাতে আমার চেয়েও মাতাল ছিলেন আপনি। আসলে এ্যালকোহল মানুষকে মাতাল করতে পারে না, মাতাল করে তার মন। এ্যালকোহল যদি সেটা পারতো,তাহলে প্রতি রাতেই আমিই বড় মাতাল হতাম। আপনি আমাকে টাকা এবং ক্ষমতার জন্য অহংকারী বলেছেন।  এই কথা অন্য কেউ কোনোদিন বলেননি। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা আপনার প্রতি।

প্রতিটি মানুষেরই টাকা এবং ক্ষমতায় লোভ থাকে। তাদের মধ্যে আমার বোধহয় টাকার প্রতি লোভ অনেক কম, না হলে এতদিনে কম করে হলে ১০ কোটি টাকার বেশি থাকতো। আমার একটা ব্যাংক একাউন্ট আছে সেটিতে টাকা আছে ৭ শতাধিক টাকা।  আর আপনি যেটাকে আমার  ক্ষমতার কথা বলছেন,সেটা মূলত আমার কানেকটিভি। সবার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করাটা,ভালো সম্পর্ক বজায় রেখে কাজ আদায় করাটা ক্ষমতা নয়।

এই যে ধরুন, ১১ মাস ব্যবহার করার পর আপনার একটা মোবাইল ফোনসেট ঠিক করাতে গিয়ে নানা হয়রানির শিকার হলেন। তারপর সাথে সাথে ছোট ভাইদের পাঠালাম। এরপর নিজের অসুস্থ শরীর নিয়ে একবার যা বলেছিলাম,তাই হয়েছে।  আপনি ১১ মাস ব্যবহার করার পর মোবাইল ফোন সেটের ক্ষতিপূরণ ২০ হাজার টাকা পেয়েছেন।  মোবাইলটির দাম ছিল ২৩ হাজার ২০০ টাকা। আমার কথায় আপনি দোকানিকে প্রায় ৪০০০ টাকা ছাড় দিয়েছেন।  এটাকে যদি ক্ষমতা বলেন, সেটা তো আপনার উপকারেই কাজে লেগেছিল।

এরপর আপনি যেদিন বললেন,আবৃত্তি দলের বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে এক জায়গায় যাবেন,তখন আমি দুষ্টামি করেই ২০ হাজার টাকা ধার চাইলাম। তারপরও আপনি আপনার কলেজ পড়ুয়া ছোট ভাইকে দিয়ে আমার নগদ পারসোনাল নম্বরে টাকা পাঠালেন। টাকাটা আমি পকেটেই রাখলাম। আর বললেন,আপনার  আবৃত্তি দলের বন্ধুরা চারজন ছেলে এবং চারজন মেয়ে বিয়ার গিলছেন,বারবিকিউ পার্টি করছেন। রাত তখন ১২ টা পেরিয়ে গেছে।  এক বড় ভাইকে সাথে নিয়ে বিকাশের দোকান খুঁজে আপনার বাসার নিচে গিয়ে আপনার ছোট ভাইকে কল দিলাম।  কিন্তু তখন আপনার ভাই বললেন,কাল পাঠিয়ে দিয়েন বিকাশে। আমি ঠিক তাই করার আগে সকাল সাড়ে ১১ টায় মাতাল অবস্থায় বাসায় গিয়ে আমার সাথে কথা বলতে পারবেন না,বলে জানালেন। পরে ম্যাসেজ করে বললাম,টাকাটা কি ছোট ভাইয়ের নম্বরে পাঠাবো না আপনার নম্বরে পাঠাবো। যথারীতি উনার নম্বরে সকাল ১১ টা ৫৫ এর দিকে টাকা পাওয়ার পর তিনি ঘুমিয়ে পরলেন। আমি যথারীতি ঘুমাতে গেলাম।

আপনি নিজে জানেন,আপনার চরিত্র কেমন,আমি জানি আমার টা কেমন। তাই কে কাকে নিয়ে কি বললো তাতে আপনার বা আমার কিছু যায় আসে না। আপনার কাছের মানুষজনকে কখনোই আমার সাথে পরিচয় করিয়ে তো দূরের কথা,কাছেই ভিড়তে দেননি। কোনো এক গোপন ভয় কাজ করতো আপনার মধ্যে।  তারপর আপনার কাছের মানুষগুলোই আপনাকে ছোট করে,আমার কাছে এসে অনেক কিছু কথা বলেছে যেগুলো আপনার মুখ থেকে শুনলে আমার মোটেও খারাপ লাগতো না।

আমি চাই না,সংগীত জানা কেউ আমার জীবনে  আসুক,এমনকি বন্ধুও হতে যাবো না। আপনাকে আজ ফোন করলাম এই কারণে আমি জানতাম,আপনি আমার জন্মদিনের উপহার দেয়ার জন্য আসতে পারেন। কিন্তু আমি এমন কারো উপহার গ্রহণ করতে অপারগ যিনি আমার সাথে মিথ্যা বলে গেছেন দিনের পর দিন।

আমি যখনই যাকে বিশ্বাস করতে গিয়েছি,জিতে গেছি,অল্প সময়ের মধ্যেই।  আমার ফেসবুকে কে বা কারা বন্ধু হবে সেটা নির্ধারণ করে দেয়ার মতো অধিকার কি আপনি আদায় করতে পেরেছিলেন? কি এমন ভয় ছিল আপনার,যে আপনার পরিচিতরা এমন কিছু বলবে যাতে আপনাকে ভুল বুঝতে হবে। শেষ পর্যন্ত ভুলটাই সঠিক হলো।

ভগবান আমাকে আবারও বাঁচিয়ে দিয়েছেন,আপনার পরিচিতরা যেভাবে আপনাকে ছোট করেছে,তাতে আমি বিস্মিত হয়েছি। ঘটনাগুলো যদি সত্যি হয় তাহলে আপনি চরম মিথ্যাবাদী। আপনি আমাকে কখনো বুঝতেই চাননি। আর শুরু থেকেই কথা ছিল আমাদের মাঝে কোনো চাওয়া পাওয়া থাকবে না। চিরকাল বন্ধু হয়ে থাকবেন। আজকেও যখন ফোন করলাম তখনো কেটে দিলেন মুখের ওপর। হয়তো আপনি এমন কারো সামনে আছেন যার সামনে আপনি কথা বলতে পারবেন না। কারণ তো কিছু একটা আছেই। আপনি যদি আপনার পরিবারের কাছে আমার কথা বলেই থাকতেন, অবশ্যই পরিবারের লোকজনের সামনেই কথা বলতে পারতেন।

এরপরও বলি,যদি পরিবারে আমার কথা বলেই থাকেন,তাহলে বলবেন উনি (উৎপল দাস) মারা গেছেন। এই মুহুর্তের পর থেকে আমি আপনার এবং আপনার পরিবারের কাছে মৃত মানুষ।  আপনি আমাকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন,সেই সুযোগও দিলাম না। নিজেকেই আপনার কাছে মৃত ঘোষণা করলাম। মৃত মানুষের ওপর কোনো রাগ রাখবেন না প্লিজ।  আপনার এবং আপনার পরিবার এমনকি নতুন কাউকে নিয়ে সুখী হবেন এই প্রত্যাশায় বিদায়।

add

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 2 =

এই কেটাগরির আরো খবর

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট

©banglatimes24 2020 All rights reserved, Design & Developed By:

Theme Customized By BreakingNews